অযোধ্যা মামলা: জন্মস্থান কীভাবে পক্ষ হতে পারে, প্রশ্ন ভারতের শীর্ষ আদালতের

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

দেবতার বিগ্রহ মামলা করতে পারেন। কিন্তু দেবতার জন্মস্থান কীভাবে ‘পার্টি’ হিসেবে মামলা লড়তে পারে? অযোধ্যা মামলায় এমনই প্রশ্ন ভারতের সুপ্রিম কোর্টের।

প্রতিদিনের ভিত্তিতে অযোধ্যা মামলার শুনানি বৃহস্পতিবার তৃতীয় দিনে পড়ল। এদিন ‘রামলালা বিরাজমান’ নামের সংগঠনের কাছে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ প্রশ্ন করে, জন্মস্থান কীভাবে মামলার পার্টি হিসেবে গণ্য হবে? এতদিন দেবতাকে মামলাকারী হিসেবে মেনে নেওয়া হয়েছে। কারণ, দেব বিগ্রহের নামে জমি-সম্পত্তি বা প্রতিষ্ঠান থাকে।

রামলালা বিরাজমানের আইনজীবীকে পরাশরণ দাবি করেন, হিন্দু ধর্মে কোনও পবিত্র স্থলে বিগ্রহ থাকাটা আবশ্যিক নয়। হিন্দু ধর্মে বিশ্বাসীরা সূর্য বা গঙ্গা নদীকে পুজো করেন। সেখানে জন্মস্থান কেন বিচারশীল ব্যক্তি হিসেবে গণ্য হবে না? এরপর পাঁচ সদস্যের বিচারপতিদের বেঞ্চ সিনিয়র আইনজীবী পরাশরণকে অন্য ইস্যুতে বক্তব্য রাখার অনুমতি দেয়।

বিরোধিতা করে মুসলিম পক্ষের আইনজীবী রাজীব ধাওয়ান বলেন, রামলালা বিরাজমান এবং নির্মোহী আখড়া পৃথক পিটিশন ফাইল করলেও আসলে তারা এক। একজনকে অনুমতি দিলে অন্যপক্ষ নিজে থেকেই চলে আসবে। রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ জমি বিতর্ক মামলায় ২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতে ১৪টি পৃথক আবেদন জমা পড়েছে।

এলাহাবাদ হাইকোর্ট বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহী আখড়া এবং রাম লালার মধ্যে তিনভাবে ভাগ করে দেয়। এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছে আরও একাধিক সংগঠন। সুপ্রিম কোর্ট মধ্যস্থতাকারী কমিটি গঠন করে সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করে। কিন্তু মধ্যস্থতার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় প্রতিদিনের ভিত্তিতে শুনানি শুরু হয়েছে শীর্ষ আদালতে।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

fourteen + ten =