আওয়ামী লীগ নেত্রী ২১ আগষ্ট আহত আইভী রহমানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Ivy Rahman injuredবিশেষ প্রতিনিধি :সাবেক রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী ও আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভী রহমানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে শান্তি সমাবেশে’ বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হয়েছিলেন আইভী রহমান। গ্রেনেডাহত ছিন্নবিচ্ছিন্ন দেহে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে ২৪ আগস্ট তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের নীতিনির্ধারকদের একজন আইভী রহমান ১৯৬৯ সালে প্রতিষ্ঠিত মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালে বাঙালির স্বাধিকার আদায়ের লক্ষ্যে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তিনি ভারত গিয়ে সশস্ত্র প্রশিক্ষণ নেন। ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৮০ সালে কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন। এর আগে আইভি রহমান মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন।
জীবদ্দশায় রাজনীতি ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন আইভী রহমান। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত মহিলা সমিতির সভানেত্রী ও জাতীয় অন্ধকল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত মহিলা সংস্থা এবং জাতীয় মহিলা সমিতির চেয়ারম্যান ছিলেন। নারীর অধিকার আদায়ের সংগ্রামে ও সমাজের অবহেলিত শিশু, প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে তার উজ্জ্বল ভূমিকা উল্লেখযোগ্য ।

১৯৪৪ সালের ৭ জুলাই ভৈরবের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন আইভী রহমান। ১৯৫৮ সালে নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। তার বাবা জালাল উদ্দিন আহমেদ ছিলেন ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ। মা হাসিনা বেগম একজন আদর্শ গৃহিণী ছিলেন । ৮ বোন, ৪ ভাইয়ের মধ্যে আইভী ছিলেন ৫ম। আইভি রহমান বিবাহিত জীবনে এক ছেলে ও দুই মেয়ের গর্বিত মা ছিলেন।
দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন রাজধানী ও ভৈরবে নানা কর্মসূচি পালন করবে। আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকালে বনানী কবরস্থানে সমাহিত আইভী রহমানের কবর জিয়ারত, শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, মিলাদ ও মোনাজাত। পারিবারিকভাবে গুলশানের আইভী কনকর্ড টাওয়ারে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে মরহুমার শুভার্থীদের শরিক হওয়ার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।
এদিকে সকাল সাড়ে ১০টায় ‘বেগম আইভি রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী পালন কমিটি’ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। ভৈরবে উপজেলা আওয়ামী লীগ, শহর আওয়ামী লীগ ও পরিবারের পক্ষ থেকে নানা কর্মসূচি পালিত হবে।
আমাদের ভৈরব প্রতিনিধি জানান, কর্মসূচির মধ্যে সকাল ৬টায় ভৈরব আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাজ ধারণ, সকাল সাড়ে ৬টায় বঙ্গবন্ধু এবং আইভি রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, সকাল ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে কোরান খতম, সকাল ১০টায় শহরের জিল্লুর রহমান পৌর মিলনায়তনে স্মরণ সভা ও বাদ জোহর মিলাদ ও তবারক বিতরণ অনুষ্ঠিত হবে। তাছাড়া তার নিজ বাড়ি আইভি ভবনে সারাদিনব্যাপী কোরানখানি ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

seven + 13 =