‘আমিও আছি ‘- অধিকারবঞ্চিত বিবাহিত শিশুদের প্রতি দায়িত্বশীল হবার আহ্বান

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বাংলাদেশের মেয়ে শিশুদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশের বিয়ে হয়ে যায় ১৮ বছরের আগে।
এই শিশুরা বিয়ে হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই একজন পূর্ণ বয়স্ক নারীর মতো বিবাহিত জীবনে প্রবেশ করে, তার বয়ঃসন্ধিকালের পরিবর্তন সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা এবং বিবাহিত জীবন সম্পর্কে কোন রকম মৌলিক সচেতনতা এবং শিক্ষা ছাড়াই।
Post

এই শিশুরা বিয়ের কারণে শিক্ষা জীবন থেকে ঝরে পড়ে, মৌলিক শিক্ষা কিংবা দক্ষতার কোন সুযোগ বা সম্ভাবনা থেকে দূরে সরে যায়।

শিশু হয়েও একজন পূর্ণ বয়স্ক বধূর মতো সমস্ত দায়িত্ব পালন করতে হয় তাকে। শারীরিক গঠন ও বিকাশ পরিপূর্ণ হওয়ার আগেই তারা সন্তান ধারণ করে বা করতে বাধ্য হয়, এবং শিশু অবস্থাতেই একটি, কখনো কখনো একাধিক সন্তানের জন্ম দেয়।

একটি শিশু হিসেবে পরিবারে যে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা ও অধিকার তার পাওয়ার কথা ছিল তার প্রায় পুরোটা থেকেই সে বঞ্চিত হয়। ফলাফল শারীরিক, মানসিক, বুদ্ধিবৃত্তিক, সামাজিক যথাযথ বিকাশের অভাবে ক্রমশ শিশুটি তার পরিবেশ থেকে হারিয়ে যেতে থাকে এবং জীবন চলার পথে প্রয়োজনীয় দক্ষতা না থাকায় সময়ের সাথে সাথে সে অস্তিত্বহীন হয়ে পড়ে।
উপরন্তু সে পুষ্টিহীনতা, বিভিন্ন ধরণের রোগে ভোগাসহ মাতৃমৃত্যুর মতো ঝুঁকির সম্মুখীন হয়ে পড়ে।

অথচ বিয়ে হয়ে যাওয়ার পরেও যদি একটি শিশুর প্রয়োজনীয় সুযোগ ও অধিকারগুলো নিশ্চিত করা যায় তাহলে সম্ভাব্য ঝুকি ও প্রতিকূলতা থেকে সে নিজেকে রক্ষা করতে পারে, স্বাভাবিক বিকাশের মাধ্যমে নিজেকে একজন সুস্থ স্বাভাবিক ও শিক্ষিত মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পারে এবং একজন সফল নাগরিক হিসেবে দেশের অর্থনৈতিক উন্নতিতে অবদান রাখতে পারে।

IMAGE (Initiative for Married Adolescent Girls’ Empowerment), বাংলায় বিবাহিত কিশোরীদের ক্ষমতায়নের উদ্যোগে ১৮ বছরের আগে বিয়ে হয়ে যাওয়া শিশুদের সহযোগিতা ও ক্ষমতায়নের জন্য একটি প্রকল্প ইমেজ । ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে এটি বাংলাদেশের জাতীয় ও জেলা পর্যায়ে উত্তরাঞ্চলের ৩টি জেলায় নিলফামারী, কুড়িগ্রাম এবং গাইবান্ধায় পূর্ণ কার্যক্রম শুরু করে।

বাংলাদেশে অবস্থিত দি নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের সহযোগিতায় টেরেডেস হোমস নেদারল্যান্ডস বাংলাদেশ এবং রেড অরেঞ্জ মিডিয়া ও কমিউনিকেশনস লিমিটেড এর সমন্বয়ে পল্লীশ্রী, টেরেডেস হোমস লুজান এবং এসকেএস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত করছে। এই প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্যই হলো বিবাহিত কিশোরীদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে সম্পূর্ণ সুস্থ ও মর্যাদাপূর্ণ জীবনের নিশ্চিত করা।

২০১৬ সালে আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে উপলক্ষ করে ইমেজ প্রকল্প একটি সপ্তাহব্যাপী ক্যাম্পেইন এর আয়োজন করেছে। ক্যাম্পেইনটির শিরোনাম ‘আমিও আছি’ যা ৫-১১ মার্চ ২০১৬ পর্যন্ত পরিচালিত হবে। নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের সহযোগিতায় টেেেরডেস হোমস নেদারল্যান্ডস বাংলাদেশ, রেড অরেঞ্জ মিডিয়া ও কমিউনিকেশনস লিমিটেড, পল্লীশ্রী, টেরেডেস হোমস লুজান এবং এসকেএস ফাউন্ডেশন সম্মিলিত অংশগ্রহণে ক্যাম্পেইনটি পরিচালিত হচ্ছে।
ক্যাম্পেইনটির আয়োজন করেছেন রেড অরেঞ্জ মিডিয়া ও কমিউনিকেশনস লিমিটেড। ৩টি গুরুত্বপূর্ণ শিশু অধিকার বিষয়ক প্লাটফরম- বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম, জাতীয় কন্যাশিশু এ্যাডভোকেসি ফোরাম এবং গার্লস নট ব্রাইডস ফোরাম এই ক্যাম্পেইনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে। এ বিষয়ে যৌথভাবে একটি গোল টেবিল বৈঠক হবে দৈনিক প্রথম আলো কার্যালয়ে।
জনপ্রিয় ব্যান্ড দল ‘চিরকুট’ বিবাহিত কিশোরীদের সহযোগিতার বিষয়ে একাত্মতা প্রকাশ করে ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডর হয়েছে। এছাড়াও সপ্তাহব্যাপী মিডিয়া ক্যাম্পেইন বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়াতে তুলে ধরার কর্মসূচী রয়েছে। ৫ মার্চ ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে একটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই ক্যাম্পেইনের উদ্বোধনী ঘোষনা করা হয়।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

2 + 10 =