আর্জেন্টিনায় ধসে পড়ল ‘হেরিটেজ’ পেরিতো মোনেরোর তুষার সেতু

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

ভেঙে পড়ল আর্জেন্টিনায় পেরিতো মোনেরো হিমবাহের সেতু। আর্জেন্টিনার সান্তাক্রুজের প্যাটাগোনিয়া অঞ্চল। সেখানকার এল ক্যালাফেতের অদূরেই লস গ্লেসিয়ার্স ন্যাশনাল পার্ক। সেখানেই রয়েছে ১৯ মাইল দীর্ঘ এই হিমবাহ। ‘হোয়াইট জায়েন্ট’ বা ‘সাদা দৈত্য’ নামে পরিচিত স্থানীয় অঞ্চলে। বর্গ মাইলের হিসাবে বিচার করলে প্রায় ১০০ বর্গ মাইল অঞ্চল জুড়ে এই তুষারশুভ্র প্রাকৃতিক ‘ইমারত’-টির বিস্তৃতি। ইউনেসকোর ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ’-এর অন্যতম পেরিতো মোনেরো। প্রতি চার বছর অন্তর আর্জেন্তেনীয় হ্রদে তা থেকে বিপুল পরিমাণ বরফ এসে জমা হয়।

হিমবাহটির গঠন প্রক্রিয়ায় এই চার বছর অন্তর হ্রদের জল জমে তৈরি হয় একটি গম্বুজাকৃতি তুষার সেতু। তার তলা দিয়ে বরফের চাঙর ভাসিয়ে নিয়ে যায় সফেন হ্রদ। হ্রদের সঙ্গে হিমবাহটিকে যুক্ত করে সংশ্লিষ্ট সেতুটি। এই ঘটনা চাক্ষুষ করতে লস গ্লেসিয়ার্স ন্যাশনাল পার্কে প্রতিদিন শতাধিক পর্যটক ভিড় জমান। বাৎসরিক হিসাবে সংখ্যাটি প্রায় সাত লক্ষ। রবিবার মাঝরাতে প্রবল ঝড়ে এই বরফের সেতু থেকে বিশাল বিশাল চাঙড় ভেঙে পড়তে শুরু করে। সেতু ধসে যাওয়ায় ওই হ্রদ ও হিমবাহের মধ্যে কোনও সংযোগ সূত্র রইল না। তাই সোমবার থেকে বন্ধ রাখা হয়েছে লস গ্লেসিয়ার্স ন্যাশনাল পার্ক।

কর্তৃপক্ষ জানায়, পর্যটকদের বিপদের কথা মাথায় রেখেই পার্কটি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ প্রকৃতি বিরূপ হওয়ায় হিমবাহের পাদদেশে ভাঙন ধরতে পারে। তার প্রভাব পড়তে পারে পর্যটকরা যে জায়গায় দাঁড়িয়ে হিমবাহটি দেখেন তার উপর। তবে ঠিক কতদিন লস গ্লেসিয়ার্স ন্যাশনাল পার্ক বন্ধ থাকবে সে বিষয়ে এখনও কিছু জানায়নি কর্তৃপক্ষ। প্রাকৃতিক এই বিপর্যয়ের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ও বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

18 − 4 =