আসামের নাগরিক তালিকা: স্ত্রী-কন্যা বৈধ কিন্তু বাবা বা স্বামী নাগরিক হলো না

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

“এটা কীভাবে সম্ভব যে বাবা বা স্বামী হিসাবে আমি বৈধ নাগরিক হলাম না, অথচ স্ত্রী, কন্যা আর এক পুত্রের নাম নাগরিক পঞ্জীতে উঠল! আবার এক ছেলের নাম আছে, অন্যজন বাদ!” বলছিলেন কাছাড় জেলার শিলকুড়ি এলাকার বাসিন্দা নিরঞ্জন সূত্রধর।

ছয় জনের পরিবার  সূত্রধরের। চারজনের নাম আজ তিনি খুঁজে পেয়েছেন জাতীয় নাগরিক পঞ্জীর চূড়ান্ত খসড়ায়। এক ছেলে আর তার নিজের নামও নেই। অনেকটা একই কাহিনী পাশের জেলা হাইলাকান্দির বন্দুকমারা এলাকার বাসিন্দা মীনারা বেগমের।

তিনি জানালেন, “আমার শ্বশুর আর বাবার দুজনেরই নামই ছিল ১৯৫১ সালের নাগরিক পঞ্জীতে। বাকি যা কাগজ দরকার, সব দিয়েছিলাম। কিন্তু সাতজনের পরিবারের তিনজনের নাম এসেছে, বাকি চারজনের নাম নেই।”

“এক মেয়ের আর এক ছেলের নাম নেই, আমার নিজের নামও নেই। কিন্তু অন্য ছেলে মেয়েদের নাম রয়েছে,” বলেন তিনি।

যেসব মানুষের নাম বাদ পড়েছে, তাদের অনেকে বাংলাভাষী মুসলমান বলে মনে করা হচ্ছে, যদিও এ নিয়ে নির্দিষ্ট তথ্য এখনও দেওয়া হয় নি। বাদ পড়েছে অনেক বাঙালী হিন্দুর নামও। সম্পূর্ণ খসড়া তালিকা থেকে বাদ পড়েছে ৪০ লাখ ৭ হাজার ৭০৮ জনের নাম। বিবিসি

 

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

18 − 5 =