কাশ্মীরের মানুষ বঞ্চিত হতেন, জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

‘এটা এক ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত। জম্মু ও কাশ্মীরের বিকাশে ৭০ বছর ধরে যে প্রতিবন্ধকতা ছিল তা অবশেষে দূর হল। যে স্বপ্ন বল্লভভাই প্যাটেল, শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়, বাবাসাহেব আম্বেদকর আর অটলবিহারী বাজপেয়ির ছিল সেই স্বপ্ন পূরণ হল। একইসঙ্গে কোটি কোটি ভারতবাসীর ইচ্ছাপূরণ হল। জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারার অবলুপ্তি ঘটানোর পর বৃহস্পতিবার (০৮ আগস্ট) স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৮টার দিকে জাতির উদ্দেশে ভাষণে এ কথা বলেন তিনি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই মন্তব্য করে বেতার ও দূরদর্শনের ভাষণে দেশবাসীকে জানালেন, এখন থেকে দেশের সব নাগরিকের অধিকার ও দায়িত্ব সমান। কোনও বৈষম্য নেই।

৩৭০ আর ৩৫এ বিচ্ছিন্নতবাদ, সন্ত্রাসবাদ, পরিবারবাদ আর দুর্নীতি ছাড়া আর কিছুই দেয়নি কাশ্মীরকে। এই ধারাকে পাকিস্তান দশকের পর দশক সন্ত্রাসের অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করেছে। উন্নয়ন যে দ্রুততার সঙ্গে হওয়া উচিত ছিল তা হয়নি। ওই ধারার অবলুপ্তির পর এবার কাশ্মীরের মানুষের ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত হবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে কোনও সরকারই সংসদে আইন প্রণয়ন করে মানুষের উপকারের জন্য। এতকাল ধরে এইসব আইন চালু করা হলেও একমাত্র একটি রাজ্যে তা প্রযোজ্য হয়নি কখনও। কাশ্মীরের মানুষ বঞ্চিত হতেন।

দেশের অন্য রাজ্যে মেয়েদের যে অধিকার ছিল সেই অধিকার কাশ্মীরের মেয়েদের ভাগ্যে জোটেনি। সেই তাবৎ অধিকার এবার পাবেন কাশ্মীরের নারীরা। এক লহমায় পূর্ণ রাজ্য থেকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করার ফলে আদতে যে কাশ্মীরবাসীর লাভই হবে সেকথাও বলেছেন মোদি। তিনি বলেন, এবার দ্রুত জম্মু-কাশ্মীরের সমস্ত সরকারি শূন্যপদে নিয়োগ শুরু হয়ে যাবে। সেনা ও আধাসেনাবাহিনীতে স্থানীয় যুবকদের নিয়োগ চালু হবে। কেন্দ্রীয় সরকারি সুযোগসুবিধাও পাবেন সমস্ত কর্মী। ছাত্রছাত্রীরাও বিশেষ সুবিধা পাবে। মোদি আজ বস্তুত কাশ্মীরের জন্য বিপুল আর্থিক ও সহায়তা প্যাকেজের ঘোষণা করেছেন। জম্মু-কাশ্মীরের যুবক যুবতীদের দিয়েছেন উজ্জ্বল জীবন ও জীবিকার স্বপ্ন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সম্প্রতি রাষ্ট্রপতির শাসনে থাকা জম্মু-কাশ্মীরে উন্নয়ন প্রক্রিয়া বিশেষ গতি পেয়েছে। সড়ক নির্মাণ হচ্ছে, এয়ারপোর্ট আধুনিক করা হচ্ছে, পরিকাঠামো বাড়ছে। কাশ্মীরের উন্নয়নের এই প্রক্রিয়া চালু রাখার জন্যই কিছু সময়ের জন্য এই রাজ্যকে সরাসরি কেন্দ্রের অধীনে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি বার্তা দিয়েছেন, কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে স্থায়ীভাবে রাখা হবে না। তিনি আশ্বাস দিয়েছেন, বিভ্রান্ত হবেন না। আপনাদের জনপ্রতিনিধি আপনারাই নির্বাচিত করবেন। আপনারাই মনোনীত করবেন আপনাদের মুখ্যমন্ত্রী ও সরকারকে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি কাশ্মীরকে পূর্ণ গণতন্ত্রের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।  প্রধানমন্ত্রী মোদি আজ দেশের তাবৎ খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ব্যবসায়ী, রপ্তানি বাণিজ্যের সংস্থাকে আবেদন করেছেন কাশ্মীর আর লাদাখে এসে লগ্নি করুন। ৩৭০ নং ধারার অবলুপ্তির বিরোধীদের  মোদি বলেছেন, অনেক বিরোধিতা করেছেন। একবার অন্তত দেশহিতের কথা ভাবুন। সময় এসেছে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি  বার্তা দিয়েছেন, আমি কাশ্মীরবাসীকে ভরসা দিচ্ছি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে। সবশেষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, কাশ্মীরবাসী নির্ভয়ে ঈদ পালন করুন। আমি নিশ্চিত সন্ত্রাসবাদকে পরাজিত করে কাশ্মীরের ছেলেমেয়েরাই নিয়ে আসবে নতুন সোনালি সকাল।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

nineteen − 2 =