কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসরের প্রতিষ্ঠাতা বজলুর রহমানের নামাঙ্কিত ‘বজলুর রহমান ভাইয়া স্মৃতি পদক’ দেওয়া হয়েছে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিলুপ্ত করতে দেশের একটি কুচক্রী মহল অপতৎপরতা চালাচ্ছে। পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন এবং বতর্মান হালদশার জন্যও তারা দায়ী। এটা সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্র। যেমনটা হয়েছিল বঙ্গবন্ধু হত্যার সময়। আমাদের সময় দেন, আমরা দোষীদের বিচারের মাধ্যমে নিশ্চিতভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলব।

তোয়াব খান বলেন, ‘দৈনিক সংবাদ থেকে আমার সঙ্গে সাংবাদিক বজলুর রহমানের পরিচয়। তারপর অন্য পত্রিকায় চলে গেলেও তার সঙ্গে আমার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়নি। খেলাঘরের সঙ্গে সেই থেকে আমার মনন আর চিন্তার যোগসূত্র। সেই সম্পর্কের সূত্রটি ছিঁড়ে যায়নি।’ চিত্রশিল্পী আবুল বারক আলভী বলেন, ‘এ পদক আমার জীবন চলার পথে দায়িত্ব অনেকগুণ বাড়িয়ে দিল।’ মফিদুল হক বলেন, ‘খেলাঘরের সঙ্গে সম্পর্কের পরম্পরার ধারাবাহিকতায় এ পুরস্কারটি পেয়ে আমার মনে হচ্ছে, জীবনচক্র যেন আজ পূর্ণ হল। সমাজের এ দুঃসময়ে খেলাঘর একটি প্রেরণার উৎস হয়ে কাজ করতে পারে।’ নিরঞ্জন অধিকারী বলেন, ‘পদক আর সম্মাননা পাওয়ার জন্য কাজ করছি না। দেশকে ভালোবেসে, দেশমাতৃকার জন্য যে কাজটি করছি- এ পদক সেই দায়িত্ব আরও বহুগুণে বাড়িয়ে দিল।’

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

13 − 8 =