তাইওয়ানে এলজিবিটি ইস্যুতে লাখো মানুষের স্বাক্ষর

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নভেম্বরে তাইওয়ানের সাধারণ নির্বাচন৷ সেই সময় এলজিবিটি সম্প্রদায়ের দু’টি অধিকারের প্রশ্নে নির্বাচন কমিশনের প্রতি গণভোট আয়োজনের আহ্বান জানিয়েছেন এলজিবিটি অধিকারকর্মীরা ৷ এ আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন ১০ লাখ মানুষ ৷

অধিকারকর্মীরা ১০ লাখ স্বাক্ষর সম্বলিত একটি আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের কাছে৷ দু’টি অধিকারের মধ্যে একটি হলো সমলিঙ্গের মানুষের মধ্যে বিয়ের সাধারণ বিয়ের মতোই বৈধতার স্বীকৃতি এবং অন্যটি হলো সিনিয়র হাই স্কুলে পাঠ্যসূচিতে এলজিবিটি সম্প্রদায়ের জন্য যৌন শিক্ষা অন্তর্ভুক্তিকরণ৷ প্রথম ইস্যুতে সাড়ে পাঁচ লাখ স্বাক্ষর জমা পড়েছে আর অন্যটিতে জমা পড়েছে সাড়ে চার লাখ স্বাক্ষর৷

তাইওয়ানে যে-কোনো ইস্যুতে গণভোটের জন্য অন্তত ২ লাখ ৮০ হাজার মানুষের স্বাক্ষরের প্রয়োজন হয়৷ গণভোটে বেশিরভাগ মানুষের  সম্মতি পেলে সমলিঙ্গের মানুষের বিয়ের বৈধতার ক্ষেত্রে আইনে পরিবর্তন আনতে পারে সরকার৷

আবেদনপত্র জমা দেয়ার আগে এলজিবিটি অধিকার কর্মী মিয়াও পো-ইয়া সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘এই স্বাক্ষর সাধারণ জনগণের মতামতের বহিঃপ্রকাশ৷ আবেদনপত্র জমা দেয়ার সময় অনেক নারীবাদী, সমলিঙ্গ অধিকারকর্মী এবং এলজিবটি অধিকারকর্মীরা স্লোগান দিয়েছিলেন, ‘‘দশ লাখ মানুষ বিয়ের সমঅধিকারের পক্ষে৷”

২০১৭ সালে তাইওয়ানের সাংবিধানিক আদালত সমলিঙ্গের বিয়ের বৈধতা দেয়, যা দুই বছর পর থেকে জাতীয়ভাবে আইনি উপায়ে কার্যকর হওয়ার কথা৷ কিন্তু রক্ষণশীল দলগুলোর বিরোধিতার কারণে এখনো বৈধতা পায়নি সমলিঙ্গের বিয়ে৷ এই দলগুলো এরই মধ্যে এলজিবিটি সম্প্রদায়ের বিপক্ষে প্রচারণা শুরু করেছে৷

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

6 + 15 =