দ্বিতীয়বার ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন হাসান রুহানি

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পেয়ে দ্বিতীয়বার ইরানের প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন হাসান রুহানি! জানা গিয়েছে, সংস্কারপন্থী রুহানি প্রায় ২ কোটি ৩৫ লক্ষ ভোট পেয়েছেন। যেখানে কট্টরপন্থী হিসাবে পরিচিত তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইব্রাহিম রায়িজি পেয়েছেন প্রায় ১ কোটি ৫৮ লক্ষ ভোট। এবারের নির্বাচনে মোট ভোট পড়েছে ৪ কোটি ২০ লক্ষ। যা মোট ভোটারদের ৭০ শতাংশ। এবারের নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ছিল প্রায় ৫ কোটি ৬৪ লক্ষ। রুহানির দপ্তরের প্রধান কর্তা হামিদ আবুতালেবি এক ট্যুইট বার্তায় লিখেছেন, রুহানি ৫৭ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইব্রাহিম রায়িজি পেয়েছেন ৩৮.৩ শতাংশ।

৬৮ বছর বয়সি রুহানি গতবার প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ছয় শক্তিধর দেশের সঙ্গে পারমাণবিক চুক্তি করে আন্তর্জাতিক আর্থিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে পদক্ষেপ নেন। বিভিন্ন সংস্কারের মাধ্যমে নাগরিকদের আগের চেয়ে বেশি স্বাধীনতা দিয়েছেন বলে ইরানি তরুণদের কাছে তাঁর জনপ্রিয়তা বেড়েছে বলে মনে করা হয়।
স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়, বিকাল ৬টায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ভোটারদের দীর্ঘ লাইনের কারণে তা চলে রাত ১২টা পর্যন্ত। ৬৩ হাজার ৫০০ ভোটকেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ চলে। বিশ্বের ১০২টি দেশের প্রবাসী ইরানি নাগরিকরাও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন। এজন্য বিভিন্ন দেশে স্থাপন করা হয়েছে ৩১০টি ভোটকেন্দ্র।
ইরানের ১২তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। তাঁরা হলেন– বর্তমান প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি, ইরানের বিচার বিভাগের প্রাক্তন উপ-প্রধান সইদ ইব্রাহিম রায়িজি, ইরানের বিশেষজ্ঞ পরিষদের সদস্য আগা মিরসালিম এবং প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট মোস্তফা হাশেমি তাবা। তবে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয় হাসান রুহানি এবং ইব্রাহিম রায়িজির মধ্যেই।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

fourteen − six =