‘নোংরা রাজনৈতিক পক্ষপাতের’:জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে বেরিয়ে গেলো যুক্তরাষ্ট্র

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে বের হয়ে আসলো যুক্তরাষ্ট্র। সংস্থাটির বিরুদ্ধে ‘নোংরা রাজনৈতিক পক্ষপাতের’ অভিযোগ এনে যুক্তরাষ্ট্র এই পদক্ষেপ নিয়েছে বলে বুধবার বিবিসি জানিয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালে বলেন, স্বার্থপরায়ণ এই কাউন্সিল আসলে ‘মানবাধিকারের রসিকতা করে’। মাইক পম্পেও কাউন্সিলকে মানবাধিকারের দুর্বল রক্ষক হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

গত বছরও এই কাউন্সিলকে ‘ইসরায়েল-বিরোধী’ আখ্যা দিয়েছিলেন হ্যালে। নিকি হ্যালি প্রকাশ্যে হুমকি দিয়েছিলেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল ধারাবাহিক ইসরায়েলবিদ্বেষী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। এখান থেকে সরে না আসলে যুক্তরাষ্ট্র কমিশন ছেড়ে যাবে।

২০০৬ সালে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল গঠিত হয়। জেনেভাভিত্তিক এই কাউন্সিলের লক্ষ্য বিশ্বজুড়ে মানবাধিকার সমুন্নত ও সুরক্ষা।

মানবাধিকার কর্মীরা মনে করছেন, যুক্তরাষ্ট্রের এমন সিদ্ধান্তে বিশ্বজুড়ে মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রভাব পড়তে পারে।

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্থনিও গুতেরেস বলেছেন, তিনি খুব করে চান যে যুক্তরাষ্ট্র যেন কাউন্সিলে থাকে। মানবাধিকার কমিশনার জায়েদ রাদ আল হুসেন যুক্তরাষ্ট্রে এই সিদ্ধান্তকে হতাশাজনক উল্লেখ করে বলেন, এটা অবশ্য অপ্রত্যাশিত নয়। জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার জেইদ রাদ আল হুসেইন যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তকে হতাশাব্যঞ্জক হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

twelve − 9 =