পাবলো নেরুদা, সুভাষ মুখোপাধ্যায় অনূদিত দুটি কবিতা

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

আর কিছু নয়

আমি সত্যের সঙ্গে কড়ার করেছিলাম

দুনিয়ায় আবার এনে দেব রোশনাই।

আমি হতে চেয়েছিলাম অন্নের মতন।

সংগ্রামে আমি নেই এমন কখনও হয়নি।

আর যা ভালবাসতাম আমি এখন তার ঠাইতে,

আমার হারানো নির্জনতার মাঝখানে।

এই পাথরের কোলে আমার ঘুম নেই।

আমার নীরবতার মধ্যে সমানে খেটে চলেছে সমুদ্র ৷

======================

ভুলতে পারছি না

যদি আমাকে জিগ্যেস করো কোথায় ছিলাম

বলতে হবে ‘এই রকমই হয়’,

বলব পাথরে পাথরে ঢেকে-যাওয়া জমির কথা

থেকেও যে নিজেকে খুইয়ে ফেলে, সেই নদীর কথা বলব।

আমি শুধু জানি পাখিদের হারানো জিনিস,

পেছনে ফেলে-আসা সমুদ্র কিংবা আমার বোনের কান্না।

কেন আলাদা এত অঞ্চল, কেন দিনের

পায়ে পায়ে দিন আসে? কেন কালো রাত

মুখের মধ্যে ঘনায়? মৃতের দল কেন?

কোথা থেকে এসেছি। যদি জিগ্যেস করো তাহলে ভাঙা জিনিসগুলোর কথা আমাকে তুলতে হবে,

ভয়ানক তেতো তেতো সব হাঁড়িকুড়ি,

প্রায়শ পচা বিশাল বিশাল সব জানোয়ার,

বলতে হবে আমার ব্যথায় কাতর হৃদয়ের কথা।

পরস্পরকে কাটাকুটি করা স্মৃতি নয়। সেসব

বিস্মৃতির রাজ্যে ঘুমিয়ে পড়া ছাইরঙা পায়রাও তারা নয়

চোখের জলে ভাসা সেসব মুখ,

গলায় তাদের আঙুল দেওয়া,

পাতার সঙ্গে টুপটাপ খসে পড়া,

একটি অতিক্রান্ত দিনের অন্ধকার,

যে দিনটিকে গিলিয়েছি। আমরা আমাদের দুঃখী রক্ত

দেখ ল্যাজঝোলা পাখি, দেখ বেগনে ফুল

যা কিছু আমাদের অসম্ভব ভাল লাগে৷

লম্বা ঝুলওয়ালা কার্ডের ছাপা ছবিতে যাদের দেখতে পাও

আর ভেতর দিয়ে বেড়িয়ে বেড়ায় সময় আর মাধুর্য।

কিন্তু এই দাঁতগুলো পেরিয়ে আর যেন আমরা ভেতরে না যাই

নৈঃশব্দ্যের জমানো খোলাগুলোর গায়ে যেন দাঁত না বসাই,

কেননা আমি কী উত্তর দেব আমি জানি না-

কত যে মরছে তার ইয়ত্তা নেই,

লাল রোদ্দুরে ছিন্নভিন্ন হয়েছে কত যে বাঁধ,

জাহাজের গায়ে ঠুকে গেছে কত যে মাথা,

চুম্বনের সময় গণ্ডি দিয়ে ঘিরেছে কত যে হাত,

এমনি আরও কত কিছু আমি ভুলতে চাই৷

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

12 + seventeen =