প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের প্রাথমিক এক্সক্লুসিভ, পরিকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পে ভারতের ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

৭ এপ্রিল বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিশেষ বিমানে চেপে  পদ্মার ইলিশ এল ভারতে। পরিমাণ ৩০ কেজি। বিমানের নাম আকাশ প্রদীপ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে ঢুকলেন ইলিশ নিয়ে। রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় প্রথমে নদীয়া পরে বীরভূমের খাঁটি বাঙালি  হলেও বাংলাদেশের জামাই।

নড়াইলের জামাই আজ ভারতের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদে। ৩৪০ ঘরের সেই রাষ্ট্রপতি ভবনের রান্নাঘরে পদ্মার ইলিশ ঢুকে পড়ল। শুধুই ইলিশ? বাংলাদেশ আতিথেয়তার দেশ। দাওয়াত খাওয়ানোর চ্যাম্পিয়ন সে তো সবাই জানে। কিন্তু সওগাতেও বা কম কী? তাই শেখ হাসিনার সঙ্গে এল রাজশাহির সিল্ক, কুমিল্লার রসমালাই, টাঙ্গাইলের চমচম, লেদার ব্যাগ…।

একা প্রণব মুখাপাধ্যায় ই নয়।. হাসিনার সওগাত প্রাপকদের তালিকায় আছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি,সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধীরাও। মমতা বন্দ্যেোপাধ্যায়ের জন্য কী বিশেষ কোনও উপহার এনেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী? এনেছেন তো বটেই। কিন্তু কী তা জানা যায়নি। হাসিনার জন্যও মমতা উপহার নিয়ে এসে আজ রাতে নামলেন দিল্লি বিমানবন্দরে। যদিও হাসিনা যে উপহারের জন্য সাতবছর ধরে অপেক্ষা করছেন তার নাম তিস্তা।

দুপুরে হাসিনাকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল বাবুল সুপ্রিয়কে। তিনি ছিলেন। কিন্তু আচমকা প্রটোকল ভেঙে সকলকে চমকে দিয়ে পালামে হাজির স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁকে দেখে আরও খুশি হাসিনা। কারণ মোদি কূটনৈতিক প্রটোকল ভাঙলেন বটে, কিন্তু জুড়লেন মৈত্রীর সম্পর্কে বাড়তি উষ্ণতা।

শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানানোর পর দুইটি টুইট করেন নরেন্দ্রমোদী, একটিতে লেখেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভারত সফরে আমন্ত্রণ জানাতে পেরে আমি আনন্দিত’ আর দ্বিতীয় টি ছিল  ভারত বাংলাদেশের সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে হাসিনা এবং আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ !

ভারতের প্রধানমন্ত্রী আরো জানিয়েছেন, ইলেক্ট্রনিক্স, সাইবার নিরাপত্তা, মহাকাশ প্রযুক্তির বিষয়ে বাংলাদেশের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করবে ভারত

পদ্মার ইলিশ আজ যেমন যমুনাপাড়ে এল, তেমনই এপ্রিলের ৮ তারিখে  স্মৃতির খুলনা মেল আবার ফিরে আসবে দেশভাগের শেষ স্টেশন ছেড়ে কলকাতায়। শেখ হাসিনা, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আর নরেন্দ্র মোদি ৮ এপ্রিল শনিবার  উদ্বোধন করবেন খুলনা থেকে কলকাতা ট্রেন ও বাসরুট।

রাধিকাপুর থেকে বাংলাদেশের বিরোলি একটি মালবাহী রেলপথ নতুন করে চালু হচ্ছে। এপার ও ওপার বাংলাকে বাস ও ট্রেনের মাধ্যমে যুক্ত করার এই তিন প্রকল্প উদ্বোধনের পর মাহেন্দ্রক্ষণ। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পক্ষ থেকে প্রদান করা লাঞ্চ। যে লাঞ্চে একই টেবিলে থাকবেন তিন হাই প্রোফাইল নেতানেত্রী। আর সৌজন্য বিনিময়ের নানাবিধ আলোচনা হলেও গোটা উপমহাদেশের নজর থাকবে একটি শব্দের দিকে। সেটি কী উচ্চারিত হবে আলোচনায়? তিস্তা!

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

seventeen + three =