ফ্রান্সে এক দিনে ৩টি হামলা একই জঙ্গির

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

অবশেষে ধরা পড়লো ফ্রান্সের সুপারমার্কেটে হামলা চালান জঙ্গি, তবে মৃত । ব্রাসেল্‌স থেকে সেই খবর জানিয়ে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, শুক্রবারের হামলা জঙ্গি হামলাই ছিল। এই হামলায় যাঁরাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের সবাইকে ক্ষতিপূরণ দেবে সরকার। ইয়োরোপিয় ইউনিয়নের শীর্শ সম্মেলনে যোগ দিতে এখন ব্রাসেল্‌সে আছেন ম্যাক্রোঁ। ফ্রান্সের বাসিন্দাদের পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে ইইউ।
পুলিস সূত্রে খবর, এদিন স্থানীয় সময় সকাল ১১টা নাগাদ ফ্রান্সের দক্ষিণ–পশ্চিমে কারক্যাসোন শহরে প্রথমে একটি গাড়ির যাত্রীকে মেরে, চালককে জখম করে গাড়িটি ছিনতাই করে ২৫ বছরের মরক্কো বংশোদ্ভূত ফরাসি নাগরিক ওই জঙ্গি। গাড়ি চালিয়ে যাওয়ার সময় নিরস্ত্র অবস্থায় জগিং–এ ব্যস্ত পুলিসকর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়।

এক অফিসার জখম হলেও তাঁর চোট গুরুতর নয় বলে জানিয়েছে হাসপাতাল। তারপরই ত্রাবেস সুপার মার্কেটে ঢুকে পড়ে ওই জঙ্গি। সেখানে এলোপাথাড়ি গুলি চালিয়ে দুজনকে হত্যা করে সে। ক্রেতা, বিক্রেতারা আতঙ্কিত হয়ে ছুটোছুটি শুরু করেন। খবর পেয়ে পুলিস পুরো সুপারমার্কেট ঘিরে ফেলে। শুরু হয় গুলির লড়াই। স্থানীয় সময় দুপুর ২ টা নাগাদ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায় সন্ত্রাসী ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই জঙ্গি নিজেকে আইএস–এর সদস্য বলে দাবি করে ‘‌আলাহু আকবর’‌ বলে চিৎকার করেছিল। বলেছিল সে সিরিয়ার বদলা নিচ্ছে। এমনকি ২০১৫ সালে প্যারিস হামলার একমাত্র জীবিত জঙ্গি সালাহ্‌ আবদেসালামের মুক্তিও দাবি করেছিল। পুলিস–জঙ্গি সংঘর্ষ চলাকালীন ত্রাবেসের সব কটি স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের ক্লাসের ভিতরেই থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এলাকার বাসিন্দাদেরও ঘর থেকে বেরতে নিষেধ করেছিল পুলিস।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

3 × 1 =