বাহুবলে অপহৃত ৪ শিশুর লাশ উদ্ধার

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলায় পাঁচ দিন ধরে নিখোঁজ চার শিশুর মাটিচাপা দেয়া লাশ পুলিশ উদ্ধার করেছে।

পারিবারিক ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, অপহরণের পর হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে এসব শিশু। তাদের হত্যাকারীদের ধরিয়ে দিতে পারলে লাখ টাকা পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছেন পুলিশের সিলেট বিভাগের ডিআইজি মিজানুর রহমান।

স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে পুলিশ আজ বুধবার সকালে বাহুবলের সুন্দ্রাটিকি এলাকায় চার শিশুর বাড়ির পাশের একটি গর্ত থেকে লাশগুলো উদ্ধার করে। শিশুগুলোকে গত শুক্রবার অপহরণ করা হয়েছিল।

নিহত শিশুরা হল: বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র জাকারিয়া শুভ (৮), প্রথম শ্রেণীর ছাত্র মনির মিয়া (৭), চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র তাজেল মিয়া (১০), ও সুন্দ্রাটিকি মাদ্রাসার ছাত্র ইসমাইল মিয়া (১০)। এদের মধ্যে শুভ, তাজেল আর মনির সম্পর্কে চাচাতো ভাই।

শুভ সুন্দ্রাটিকি গ্রামের মো. ওয়াহিদ মিয়ার, তাজেল আবদুল আজিজের, মনির আবদাল মিয়ার, এবং ইসমাইল আবদুল কাদিরের ছেলে।

বাহুবল থানা সূত্রে জানা যায়, মৃতদেহগুলো উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

খবর পেয়ে সিলেট বিভাগের ডিআইজি মিজানুর রহমানসহ পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। যে এই চার শিশুর হত্যাকারীদেরকে ধরিয়ে দিতে পারবে তাকে এক লাখ টাকা পুরস্কার দেয়া হবে বলে ঘোষণা করে ডিআইজি মিজানুর এসময় বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের হোতাদেরকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে শাস্তি দেওয়া হবে।

নিহতদের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মাসখানেক আগে কুলগাছ কাটাকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশী আব্দুল হাইয়ের সঙ্গে মনিরদের পরিবারের সংঘর্ষ হয়, এবং এর জের ধরে শুক্রবার মনিরকেসহ চার শিশুকে বাচ্চু মিয়া নামে স্থানীয় এক ব্যক্তির সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে তুলে নিয়ে যায় আব্দুল হাই।

বিষয়টি টের পেয়ে মনিরের বাবা আবদাল মিয়া সেদিনই এ ব্যাপারে পুলিশকে অবহিত করেন এবং বাহুবল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন, কিন্তু পুলিশ তাদের উদ্ধারে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে নিহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

nineteen − 2 =