বিদেশী হত্যার টার্গেটের শিকার তাবেল্লা:হত্যার নির্দেশদাতা বড়োভাইয়ের খোঁজে পুলিশ

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail
তাবেল্লার ঘাতকদের দেয়া তথ্য জানাতে ডিএমপি  মিডিয়া সেন্টারে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়ার ব্রিফিং
তাবেল্লার ঘাতকদের দেয়া তথ্য জানাতে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়ার ব্রিফিং

“কোন একজন সাদা চামড়ার মানুষকে মেরে প্রমাণ করতে হবে এই সরকার বিদেশীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ”-এই নির্দেশ দিয়েই ভাড়াটে খুনিদের গুলশান এলাকায় নামায় ‘বড়োভাই।’ এই বড়োভাইয়ের সন্ধান পেলে মূল নির্দেশদাতাকে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হবে পুলিশ ।

ডিবি হেফাজতে তাভেল্লার ঘাতক মোঃ রাসেল চৌধুরী ওরফে চাক্কী রাসেল ওরফে বিদ্যুৎ রাসেল, মিনহাজুল আরিফিন রাসেল ওরফে ভাগিনা রাসেল ওরফে কালা রাসেল,তামজিদ আহম্মেদ রুবেল ওরফে মোবাইল রুবেল ওরফে শুটার রুবেল ও মোঃ শাখাওয়াত হোসেন ওরফে শরিফ
ডিবি হেফাজতে তাভেল্লার ঘাতক মোঃ রাসেল চৌধুরী ওরফে চাক্কী রাসেল ওরফে বিদ্যুৎ রাসেল, মিনহাজুল আরিফিন রাসেল ওরফে ভাগিনা রাসেল ওরফে কালা রাসেল,তামজিদ আহম্মেদ রুবেল ওরফে মোবাইল রুবেল ওরফে শুটার রুবেল ও মোঃ শাখাওয়াত হোসেন ওরফে শরিফ

একথা জানিয়ে  ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া  সাংবাদিকদের বলেন,দেশকে অস্থিতিশীল করতেই ইতালীয় নাগরিক তাবেলা সিজারকে হত্যা করা হয়েছে। সরকারকে চাপে ফেলাই ছিল উদ্দেশ্য। তাবেলা হত্যায় জড়িত তিনজনসহ আটককৃত চারজন এ কথা স্বীকার করেছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ডিএমপি কমিশনার। 20151026_123425

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলামের সরাসরি তত্ত্বাবধানে ডিবির একাধিক টিম রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাবেলা হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনসহ মোট চারজনকে আটক করে।

আটককৃত দের মধ্যে রাসেল চৌধুরী ওরফে চাকতি রাসেলকে গুলশান এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তানজিল আহমেদ রাসেল ওরফে মোবাইল রুবেল ওরফে সুতা রুবেলকে বাড্ডা এলাকা থেকে আটক করা হয়। মিনহাজুল ইসলাম রাসেল ওরফে ভাগ্নে রাসেল ওরফে কালা রাসেলকেও বাড্ডা এলাকা থেকে আটক করা হয়। তার দেয়া তথ্য মতে মানিকের গ্যারেজ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।। তাই মানিককেও গ্রেফতার করা হয়। মোটরসাইকেলটি সাখাওয়াত হোসেন শরীফ নামের এক ব্যক্তির। তার কাছ থেকে অভিযানের কথা বলে ভাগ্নে রাসেল মোটরসাইকেলটি ধার নিয়ে রাতে আবার মোটর সাইকেলটি তারা ফেরত দেয়।

এ তথ্য জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঠান্ডা মাথার খুনি হিসেবে রুবেলের অতীত রেকর্ড রয়েছে।ভাগ্নে রাসেল ও চাকতি চৌধুরী নেশাসক্ত। তারা বিভিন্ন মামলায় কয়েকবার কারাভোগ করেছে এবং এখনো তাদের নামে অনেক মামলা রয়েছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার বলেন, তাবেল্লা হত্যার পর পুরো কূটনৈতিক পাড়া নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে। বিদেশী নাগরিকদের কোন নিরাপত্তার সংকট নেই। কোন ঘটনা ঘটার ২ মিনিটের মধ্যে পুরো এলাকা ব্লক করে অপরাধীদের ২ মিনিটের মধ্যে আইনের আওতায় আনবার জন্যে পুলিশ প্রস্তুত বলে জানান ডিএমপি  কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

5 × three =