ভারতের তেলেঙ্গানায় অসবর্ণ বিয়ে: আটমাসের মধ্যে হত্যা করা হলো প্রণয়কে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম লিখেছিলেন, “জাতের নাম বজ্জাতি সব, জাত জালিয়াত খেলছো জুয়া..?”  শতবছর পরে এসে ও জাতের নামে বজ্জাতি করে হত্যা করা হলো যুবককে।ভারতের তেলেঙ্গানায় অসবর্ণ বিয়ে মানতে না পেরে হত্যা করা হলো এক যুবককে। নিহত যুবক প্রণয়ের অন্তঃস্বত্বা স্ত্রী অমৃতার পিতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

হাসপাতাল থেকে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিয়ে বেরোচ্ছেন এক যুবক। পিছনে হেঁটে আসছে এক জন। হাতে মুগুর। হাসপাতালের গেট থেকে বেরোতেই আচমকা ছুটে এসে ওই যুবকের মাথায় সজোরে আঘাত। লুটিয়ে পড়লেন যুবক। তারপর আরও একবার আঘাত করে পালিয়ে গেল আততায়ী। সিসিটিভি ফুটেজে এমনই ভয়ানক ভাবে প্রনয়কে হত্যা করার ঘটনা ধরা পড়েছে  ভারতের তেলঙ্গানার নালগোন্ডা জেলার মিরিয়ালগুড়ায়।

আট মাস আগে প্রণয় পেরুমাল্লা (২৩) নামে ওই যুবক উচ্চবর্ণের অমৃতা বর্ষিণীকে বিয়ে করেন। নিম্নবর্ণের সঙ্গে বিয়ে মেনে নিতে না পারার জেরে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পরিকল্পনা করে প্রণয়কে খুন করেছে বলে তাঁর পরিবারের অভিযোগ ।

সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই প্রণয়ের শ্বশুর ও খুড়শ্বশুরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। খোঁজ চলছে আততায়ীর। ঘটনার পরই অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও কঠোর শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ দেখান এলাকাবাসী।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, স্কুলে পড়াকালীনই তফসিলি সম্প্রদায়ভূক্ত প্রণয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে বৈশ্য সম্প্রদায়ের অমৃতার। অমৃতার বাবা মিরিয়ালগুড়া এলাকায় প্রোমোটারির ব্যবসা করেন। অমৃতার পরিবার এই সম্পর্ক প্রথম থেকেই মেনে নিতে পারেনি। প্রণয়ের পরিবার প্রথমে সম্পর্কে আপত্তি করলেও পরে মেনে নেয়। শেষে অমৃতার পরিবারের অমতেই আট মাস আগে দু’জন বিয়ে করেন।  আট মাসের মধ্যেই হত্যা করা হলো প্রণয়কে । আনন্দবাজার

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

6 − three =