মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়ার হাত থেকে পুরস্কার নিলেন বাংলাদেশের সাহসী নারী শারমীন

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বাল্যবিয়ে এবং জোরপূর্বক বিয়ের বিরুদ্ধে কাজ করায়  বুধবার বাংলাদেশের ঝালকাঠির শারমিন আক্তারকে বিশ্বসেরা সাহসী নারীর অ্যাওয়ার্ড ‘সেক্রেটারি অব স্টেটস ইন্টারন্যাশনাল উইমেন অফ কারেজ (আইডব্লিউওসি) ২০১৭’ প্রদান করেন মেলানিয়া ট্রাম্প।মুক্তি এবং ব্যক্তিগত ক্ষমতায়নের বীজ এখান থেকেই জন্ম নেবে বলে মনে করেন মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর ২০০৭ সাল থেকে শান্তি, বিচার, মানবাধিকার, জেন্ডার এবং নারীর ক্ষমতায়নে অবদান রাখার জন্য বিশ্বব্যাপী ৬০ দেশের শতাধিক নারীকে এই সম্মাননা প্রদান করেছে।

সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে নিজ দেশে সাহসী ভূমিকা রাখায় পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মোট ১৩ জনকে পুরষ্কৃত করা হয়।অন্যদের সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটার আগে সবাই এসব কথা মনে রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তাদের প্রত্যেকের জীবনের সাহসিকতার গল্পগুলো অন্যদের ক্ষেত্রে অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজ করবে। ২০১৫ সালে নবম শ্রেণিতে পড়ার সময়  ১৫ বছর বয়সী কিশোরী শারমিনকে বাবার বয়সী একজনের সাথে  বিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেনতার মা। কিন্তু শারমিন সেই বিয়ে আটকে দিয়ে নিজের মায়ের নামে থানায় মামলা করেন। এর পর পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকে শারমিন।দক্ষিণ এশিয়ায় এ ধরণের চাপের মুখে থাকা বহু কিশোরীর জন্য তিনি একটি উদাহরণ।

মেলানিয়া ট্রাম্প  আরো বলেন, “অংশগ্রহনমূলক বিশ্বের নেতা হিসাবে আমাদের নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করতে হবে। আমাদের সবার অবস্থান থেকে সবাইকে শ্রেণী ভুলে সম্মান করেত হবে। মনে রাখতে হবে আমরা সবাই একটি দৌড়ের সদস্য আর সেটা হচ্ছে মানব দৌড়” ।

পুরস্কারপ্রাপ্ত ১৩ জনের মধ্যে ইয়েমেনের মানবাধিকার কর্মী এবং একজন সিরিয়ান রয়েছেন,  ট্রাম্পের অভিবাসন নীতির কারণে পুরস্কার নিতে তাদেরকে যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা দেয়া হয়নি জানিয়েছে দি ওয়াশিংটন পোস্ট।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

8 − 6 =