মীর কাসেম আলীর আপিল শুনানি শুরু

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর আপিল শুনানি চলছে। আজ মঙ্গলবার সকালে প্রধান বিচারপতি এস. কে. সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের এক নম্বর বেঞ্চে এ শুনানি শুরু হয়েছে।

বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা হলেন: বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান।

আদালতে মীর কাসেম আলীর পক্ষে মঙ্গলবার সকালে লিখিত যুক্তিতর্ক জমা দেন আইনজীবী এস. এম. শাহজাহান। এরপর তিনি অভিযোগগুলো পড়া শুরু করেন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানীতে উপস্থিত রয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এর আগে গত ২ ফেব্রুয়ারি আদালত মীর কাসেম আলীর আপিল শুনানির জন্য ৯ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করে। সেদিন মীর কাসেমের আইনজীবীদেরকে শুনানির জন্য এক সপ্তাহ সময় দেয় আদালত।

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে ফাঁসির রায় দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। ওই বছরের ৩০ নভেম্বর রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন তিনি। দেড়শ’ পৃষ্ঠার মূল আপিলসহ এক হাজার ৭৫০ পৃষ্ঠার আপিলে মোট ১৬৮টি কারণ দেখিয়ে ফাঁসির আদেশ বাতিল করে খালাস চেয়েছেন মীর কাসেম।

মুক্তিযুদ্ধকালে জামায়াতের কিলিং স্কোয়ার্ড আলবদর বাহিনীর নেতা ও ইসলামী ছাত্রসংঘের সাধারণ সম্পাদক মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে আটজনকে নির্যাতনের পর হত্যা, মরদেহ গুম ও ২৪ জনকে অপহরণের পর চট্টগ্রামের বিভিন্ন নির্যাতনকেন্দ্রে আটকে রেখে নির্যাতনসহ মানবতাবিরোধী ১৪টি অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ১০টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়।

১১ ও ১২ নম্বর অভিযোগে কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিনসহ মোট আটজনকে হত্যার দায়ে কাসেমের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল।

মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলোতে রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনীর কেন্দ্রীয় কমান্ডার হিসাবে মীর কাসেম চট্টগ্রাম অঞ্চলে সরাসরি মানবতাবিরোধী অপরাধে যুক্ত হন। একাত্তরের যুদ্ধাপরাধ মামলায় অন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের সপ্তম মামলা এটি, যার ওপর সর্বোচ্চ আদালতে শুনানি শুরু হলো।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + sixteen =