মুক্তিযুদ্ধে নৌ-কমান্ডোদের দুঃসাহসী অভিযানের ওপর চলচ্চিত্র নির্মান করা হবে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ মুক্তিযুদ্ধে নৌ-কমান্ডোদের দুঃসাহসী অভিযানকে স্মরণীয় করে রাখতে চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে।
আজ সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় আরো জানানো হয়, ইতোমধ্যে চলচ্চিত্রের পান্ডুলিপি লেখক এবং পরিচালক হিসেবে গিয়াস উদ্দিন সেলিমকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
কমিটির সভাপতি মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, বীর উত্তম সভায় সভাপতিত্ব করেন।
কমিটির সদস্য নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, মো. নূরুল ইসলাম সুজন, এম আব্দুল লতিফ, রণজিৎ কুমার রায়, মমতাজ বেগম এড্ভোকেট এবং বদরুদ্দোজা মো. ফরহাদ হোসেন সভায় অংশগ্রহণ করেন।
চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম, মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম এবং বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌÑপরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)-এর চতুর্থ শ্রেণীর জনবল আউট সোর্সিং-এর মাধ্যমে সংগ্রহ না করে সরাসরি নিয়োগ করার বিষয়ে সভায় আলোচনা করা হয়।
সভায় জানানো হয়, সমুদ্রপথে বাণিজ্যের প্রসারসহ আঞ্চলিক যোগাযোগ বৃদ্ধি এবং মংলা বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০০৯ থেকে গত বছরের জুন পর্যন্ত ৪২৩ কোটি ৬৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা ব্যয়ে মোট ৮টি উন্নয়ন প্রকল্প এবং ৪টি উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়েছে। বর্তমানে ৮টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে এবং ৮টি উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদনের প্রক্রিয়ায় রয়েছে।
এ ছাড়াও সভায় বিভিন্ন বন্দরের ঝুঁকিপূর্ণ কাজের সাথে সম্পৃক্ত কর্মচারীদের ঝুঁকি ভাতা কিভাবে প্রদান করা যেতে পারে সে ব্যাপারে সুস্পষ্ট প্রস্তাবনা কমিটিতে প্রেরণের সুপারিশ করা হয়।
সভায় নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ও মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানসহ মন্ত্রণালয় ও সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

2 × 2 =