মুক্তিযোদ্ধা শিরিন বানু মিতিল আর নেই

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

বুধবার মধ্যরাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শিরিন বানুর মৃত্যু হয় জানিয়েছেন তার ছেলে তাহসিনুর রহমান নিকো  ।

শিরিন বানুর বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর।তার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

১৯৫০ সালের ২ সেপ্টেম্বর পাবনায় খোন্দকার শাহজাহান মোহাম্মদ ও মা সেলিনা বানু দম্পতির ঘরে জন্ম নেন শিরিন বানু।

মা পাবনা জেলার ন্যাপ সভানেত্রী এবং ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট সরকারের এমপি ছিলেন; বাবা ছাত্রজীবন থেকে শুরু করে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত কমিউনিস্ট পার্টির সঙ্গে যুক্ত।

রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেওয়ায় ছোটবেলা থেকেই রাজনীতি সচেতন স্কুলজীবনেই ছাত্র ইউনিয়নে যোগ দেন শিরিন।

তাহসিন  বলেন, রাত সাড়ে ১১টার দিকে তার মা গুরুতর অসুস্থ বোধ করলে তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট নিয়ে যাওয়া হয়। রাত দেড়টার দিকে তাঁকে মৃত ঘোষণা করা হয় ।তিনি স্বামী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গেছেন।

শিরিন বানুর মরদেহ বারডেমের হিমঘরে রাখা হয়েছে।

এই মহিয়সী নারীর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে মরদেহ শুক্রবার সকাল ১০টায় তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে নেওয়া হবে ।

তারপর তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে কুমিল্লায়; বাদ আছর সেখানে জানাজার নামাজের পর পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

 

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তিনি পাবনা এডওয়ার্ড কলেজের বাংলা বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন। ১৯৭০-১৯৭৩ সাল পর্যন্ত পাবনা জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভানেত্রী এবং কিছু সময়ের জন্য পাবনা জেলা মহিলা পরিষদের যুগ্ম সম্পাদিকা ছিলেন।

১৯৭১ সালে ২৫ মার্চ কালরাতে পাক হানাদারদের আক্রমণ শুরু হলে ২৭ মার্চ পাবনা পুলিশ লাইনে প্রতিরোধ যুদ্ধে সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়। সেই যুদ্ধে তিনি বীরকন্যা প্রীতিলতাকে অনুসরণ করে পুরুষ বেশে অংশ নেন।

পরদিন পাবানা টেলিফোন এক্সচেঞ্জে ৩৬ জন পাকসেনার সঙ্গে জনতার তুমুল যুদ্ধ সংগঠিত হয়, যাতে তিনিই ছিলেন একমাত্র নারী যোদ্ধা। এই যুদ্ধে ৩৬ জন পাকসেনা নিহত এবং ২ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়।

৯ এপ্রিল নগরবাড়িতে যুদ্ধের সময় পাবনার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে স্থাপিত মুক্তিযুদ্ধের কন্ট্রোল রুমের পুরো দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

এরপর ভারতের স্টেটসম্যান পত্রিকায় তার ছবিসহ পুরুষ সেজে যুদ্ধ করার খবর প্রকাশিত সেই বেশে আর যুদ্ধ করা তার পক্ষে সম্ভব হয়নি। কিন্তু তাতে তিনি দমেননি, পাবনা শহর পাকিস্তানি সেনারা দখলে নিলে ২০ এপ্রিল তিনি সীমানা পেরিয়ে ভারতে যান।

সেখানে বাংলাদেশ সরকার পরিচালিত নারীদের একমাত্র প্রশিক্ষণ শিবির ‘গোবরা ক্যাম্পে’ যোগ দেন। পরে মেজর জলিলের নেতৃত্বে পরিচালিত ৯ নম্বর সেক্টরে যোগ দেন।

দেশ স্বাধীন হলে ১৯৭৩ সালে তৎকালীন সোভিয়েত রাশিয়ায় পড়তে যান। সেখানকার পিপলস ফেন্ডশিপ ইউনিভারসিটি অব রাশিয়ায় পড়া শেষে ১৯৮০ সালে দেশে ফেরেন তিনি।

এর মধ্যে ১৯৭৪ সালে মাসুদুর রহমানের সঙ্গে তার বিয়ে হয়।

শিরিন বানু বেসরকারি সংস্থা পিআরআইপি ট্রাস্ট্রের ‘জেন্ডার অ্যান্ড গভার্নেন্স’ বিষয়ে পরামর্শক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তিনি চাইল্ড অ্যান্ড মাদার কেয়ার (সিএমসি) নামে একটি সেবাকেন্দ্রের সঙ্গেও বিশেষজ্ঞ হিসেবে যুক্ত ছিলেন।

মুক্তিযোদ্ধা শিরিন বানু মিতিলের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, “শিরিন বানু মিতিলের মৃত্যুতে দেশ একজন সময়ের সাহসী সন্তানকে হারালো। দেশপ্রেমিক এ মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু দেশের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।”

পৃথক শোক বার্তায় শোক প্রকাশ করেছেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া এবং প্রধান হুইপ আসম ফিরোজ।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

five + 19 =