মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত একাত্তরের ঘাতক জামাত আমীর নিজামী ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত একাত্তরের ঘাতক জামাত আমির মতিউর রহমান নিজামীকে  আ্যাম্বুলেন্সে করে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার পার্ট-২ থেকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আনা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনীর সহযোগী কিলিং স্কোয়াড আলবদর বাহিনীর সর্বোচ্চ নেতা নিজামীর মৃত্যুদন্ডের রায় কার্যকরের অধীর প্রতীক্ষায় রয়েছেন একাত্তরে এই বর্বর ঘাতক বাহিনীর দ্বারা নির্যাতিত এবং নিহতদের স্বজনেরা।

কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির জানান, নিজামীকে কেন্দ্রীয় কারাগারের ‘ফাঁসির সেল’ বলে খ্যাত কনডেম সেল রজনীগন্ধায় রাখা হয়েছে।

রোববার ৮ মে রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে পুলিশের পাহারায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করে। যুদ্ধাপরাধের দায়ে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত এই ঘাতককে প্রিজনভ্যানে না এনে কেন  আ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আনা হলো-এ প্রশ্নের কোন জবাব দেননি কারা কর্তৃপক্ষের দায়িত্বশীলেরা।

প্রিজনভ্যানে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ঘাতক মতিউর রহমান নিজামীকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

কাশিমপুর কারাগার পার্ট-২ এর কনডেম সেলে বন্দি ছিলেন।

নিজামীর করা রিভিউ আবেদন খারিজ করে ৫ মে  মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। সর্বোচ্চ আদালতের সর্বশেষ এ রায়ের মধ্য দিয়ে শেষ হলো নিজামীর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার আইনি লড়াই।প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ রায় দেন। অন্য তিন বিচারপতি হলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

নিজামীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রায় কার্যকরের নির্দেশ  কার্যকরের চূড়ান্ত ধাপে পৌঁছালো। এখন  রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইতে পারবেন এই ঘাতক। প্রাণভিক্ষা না চাইলে বা চাওয়ার পর আবেদন নাকচ হলে  এ্মই বর্বর ঘাতকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে আর কোনো বাধা থাকবে না।

এর পর আইনিভাবে যেকোনো সময় নিজামীর ফাঁসির রায় কার্যকর করতে পারবেন কারা কর্তৃপক্ষ।

৩ মে রিভিউ আবেদনটির শুনানি শেষে রায়ের দিন বৃহস্পতিবার ধার্য করেন একই আপিল বেঞ্চ।সর্বোচ্চ আদালতে শুনানি করেন আসামিপক্ষে নিজামীর প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন এবং রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

eighteen − 2 =