মৌলভিবাজার আবু শাহ দাখিল মাদ্রাসা ও ফতেহপুর এলাকার ২টি বাড়ি থেকে গ্রেনেড হামলা চলছে: জঙ্গি দমনে অভিযান শুরু

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

মৌলভীবাজারে  লন্ডন প্রবাসী সাইফুল ইসলামের  দু’টি বাড়ির জঙ্গি আস্তানা থেকে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে  পুলিশের দিকে এ পর্যন্ত ৩টি গ্রেনেড হামলা করা হয়। বড়হাটের জঙ্গি  আস্তানাটি একটি ডুপ্লেক্স বাড়ি থেকে এবং  ফতেহপুরের জঙ্গিরা  একতলা বাড়ি থেকে জঙ্গি হামলা করছে।

বিপুল বিষ্ফোরকের ভান্ডার নিয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর জঙ্গিরা গ্রেনেড হামলা করছে  বলে সন্দেহ করছে পুলিশ।  উভয় পক্ষে গুলি বিনিময় চলছে। নিরাপত্তা বাহিনীর জঙ্গি দমন অভিযান চলছে।বুধবার সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যেও দু’টি জঙ্গি আস্তানায়  বোমা বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দ শোনা যায়। সাড়ে ১০টার দিকে বড়হাটের ‍আস্তানার ভেতরে বিকট শব্দে তিনটি গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা।

দুটি জঙ্গি আস্তানার অভিযানস্থলে পৌছেছে পুলিশের এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নসহ (র‌্যাব) আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য। ফায়ার সার্ভিসের একটি শক্তিশালী দলও পৌঁছেছে সেখানে। জঙ্গি আস্তানা হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার পর থেকেই সেখানে মৌলভীবাজার পুলিশের পাশাপাশি আছে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। মঙ্গলবার রাত থেকে মৌলভীবাজার শহরের বড়হাট ও সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের সরকার বাজারের কাছে ফতেহপুর গ্রামের ওই দুটি জঙ্গি আস্তানা ঘেরাও করে রেখেছে পুলিশ।

বেলা সাড়ে ১০টার পর ঘটনাস্থলে পৌঁছে র‌্যাব-৯ এর বিপুলসংখ্যক সদস্য। যোগ দেয় ফায়ার সার্ভিস। আগে থেকেই বাড়ি দুটির আশপাশের লোকজনকে সরিয়ে দেয় পুলিশ। র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য আরও বাড়ানোর পর অভিযানস্থল সংলগ্ন এলাকা থেকেও উৎসুক লোকজনকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

মঙ্গলবার গভীর রাতে মৌলভীবাজার পৌরসভার বড়হাট এলাকায় আবু শাহ দাখিল মাদ্রাসার পাশের তিন তলা একটি বাড়ি  ও শহর থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে ফতেহপুর এলাকার আরেকটি বাড়ি  ঘিরে ফেলে পুলিশ।  এই ২ টি বাড়ির মালিক লন্ডন প্রবাসী সাইফুল আসরাম । এই দুই এলাকার নিরীহ জনগণকে নিরাপদ এলাকায়  সরিয়ে ফেলেছে নিরাপত্তা বাহিনী ।

ফতেহপুর গ্রামের  বাড়িটি মঙ্গলবার রাত ১টা থেকে ঘিরে রেখেছে পুলিশ।এখন জঙ্গি দমনে চেষ্টা  করছে র‍্যাব-পুলিশ কাউন্টার টেররিজম টীম।  আজ সকাল ৭টা ১০ মিনিটের সময় মৌলভীবাজারের এসপি’র নেতৃত্বে পুলিশ বাড়িটির ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে ভেতর থেকে বোমা ছুঁড়ে মারে জঙ্গিরা।  পুলিশ পাল্টা গুলি করলে জঙ্গি গ্রেনেড ছুঁড়ে মারে। বাড়ি দু’টিতে অভিযান চালানোর জন্য প্রস্তুতি চলছে র‍্যাবের ।

র‌্যাবের শ্রীমঙ্গল ক্যাম্পের অধিনায়ক এএসপি মাইনুদ্দীন  এ তথ্য জানিয়ে বলেন, জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে মঙ্গলবার রাত থেকে বাড়ি দুটি ঘিরে রেখেছে র‍্যাব , পুলিশ। ঢাকা থেকে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের একটি দলও সকালে সেখানে যুক্ত হয়েছেন।

মৌলভীবাজার সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের সরকার বাজার এলাকার ফতেহপুর গ্রাম শহর থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে। সেখানকার জঙ্গি আস্তানা লন্ডন প্রবাসী সাইফুলের বাড়ি। সেই বাড়ি থেকে জঙ্গিরা একের পর এক গ্রেনেড ছুঁড়ে মারছে। মৌলভীবাজার পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাশেদুল ইসলাম বলেন দু’টি আস্তানাতেই জঙ্গিরা  শক্ত অবস্থান নিয়েছে। পুলিশ রাত থেকেই আস্তানা দুটি ঘেরাও করে রাখে। ভোররাতের দিকে অভিযান শুরু করলে জঙ্গিরা গুলি করতে থাকে। একের পর এক গ্রেনেড ছুঁড়ছে তারা। রাশেদুল বলেন, রাত থেকে কৌশলে আমরা এলাকাবাসীকে সরিয়ে নিতে পেরেছি। এখন জঙ্গিদের কব্জা করার সকল চেষ্টা চলছে।
সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় এক জঙ্গি আস্তানায় দীর্ঘ  একটানা ৫ দিনের জঙ্গি দমন অভিযান শেষ  না হতেই একই বিভাগের পৌরসভার বড়হাট এলাকা এবং  সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের ফতেহপুর গ্রামের দু’টি বাড়িতে  জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পেয়ে বাড়ি দু’টো ঘিরে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা  রক্ষাকারী বাহিনী।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

twelve + 4 =