রোহিঙ্গা নিধনে তদন্ত শুরু আন্তর্জাতিক আদালতে

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রোহিঙ্গা নির্যাতনে প্রাথমিক তদন্ত শুরু করল ‘ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্ট’ (আইসিসি)৷ কয়েকদিন আগেই রোহিঙ্গা বিতারণ নিয়ে আইসিসিতে সু কি সরকারের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের হয়৷ তারই প্রেক্ষিতে এই পদক্ষেপ নেয় আদালত ৷

গত এপ্রিলে রোহিঙ্গা বিতরণ নিয়ে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্টে আবেদন করেন ফাতোও বেনসুদা নামের এক আইনজীবী। তিনি জানতে চান, রোহিঙ্গা বিতরণের বিষয়টি এইসিসি-র বিচারের এখতিয়ারে পড়ে কি না। তারপরই মায়ানমারের জবাব জানতে চায় এইসিসি। রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক আদালতের হস্তক্ষেপ মানতে নারাজ মায়ানমার৷ সু কি সরকার সাফ জানিয়ে দেয়, আইসিসি-র সদস্য নয় মায়ানমার তাই রোহিঙ্গা বিতারণের বিষয়টি এইসিসি-র বিচারের আওতায় পড়ে না। শুনানিতে নাইপিদাওয়ের এই যুক্তি খারিজ করে দেয় আদালত৷ বিচারপতি সাফ জানিয়েদেন, ঘটনার বিস্তর প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশে৷ এবং দেশটি আইসিসি-র সদস্য, তাই এনিয়ে তদন্ত করার অধিকার রয়েছে আদালতের৷

আদালতের এই সিদ্ধান্তে আন্তর্জাতিক মহলে কার্যত একঘরে মায়ানমার৷ গত বছর জঙ্গিদমন অভিযানের নামে রোহিঙ্গাদের উপর নৃশংস হামলা চালায় বার্মিজ সেনা। ফলে রাখাইন প্রদেশ থকে লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গারা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। মৌখিক সমর্থন জানালেও এগিয়ে আসেনি কোনও দেশ। বিশ্ব মানচিত্রে ব্রাত্য ওই শরণার্থীদের জায়গা দেয় শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। কয়েক দশক থেকেই বাংলাদেশে ঘটছে শরণার্থী সমাগম। সব মিলিয়ে এই মুহূর্তে বাংলাদেশে রয়েছে প্রায় ১২ লক্ষ রোহিঙ্গা। এতে প্রবল চাপে পড়েছে  অর্থনীতি। এহেন পরিস্থিতিতে পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত-সহ একাধিক দেশ। আর্থিক সাহায্য প্রধান করেছে বিশ্বব্যাংকও।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

five × 5 =