শহীদ মিনার তৈরি করে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করার দাবি সৌদি প্রবাসীদের

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

অহিদুল ইসলাম ॥ সৌদি আরব:সৌদি আরবের রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাসে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করার দাবি জানিয়েছেন সৌদি প্রবাসীরা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস অনুষ্ঠানে বক্তাদের এই দাবি। তারা বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে দূতাবাসে এসে প্রবাসীদের প্রভাত ফেরী করার জন্য শহীদ মিনার হওয়া দরকার। এ বছর সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আয়োজনকে দায়সারা অনুষ্ঠান বলে অভিযোগ করেন।StagePic

এ ছাড়া মহান শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য সৌদি আরবে অবস্থিত বাংলাদেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে দূতাবাসের পৃষ্ঠপোষকতায় শহীদ দিবসের নানা বিষয় নিয়ে ব্যাপক আয়োজনে পালন করা দরকার বলে মন্তব্য করেন বক্তারা। তারা বলেন, এতে করে প্রবাসী প্রজন্মরা মাতৃভাষার ত্যাগ সম্পর্কে বিস্তরিত জানতে পারবে।

সকালে দিবসটি উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের কনস্যুলাররা। এ সময় রিয়াদ প্রবাসী সামাজিক সংগঠনসহ রাজনৈতিক ও বাংলাদেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রিন্সিপালসহ শিক্ষক এবং সর্বস্তরের প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ।

বক্তারা সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ব্যাপক আয়োজনে পালন হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেন। এ সময় রিয়াদ বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি ডা. কাজী মাসুদ সৌদি আরবে অবস্থিত অন্যান্য দেশের দূতাবাসগুলি কিংবা সে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করে, এমন তথ্য বাংলাদেশ দূতাবাসে কাছে আছে কিনা জানতে চান।

এ বিষয়ে দূতাবাসের পক্ষ থেকে কিছু না বলা হলেও কার্যালয় প্রধান নজরুল ইসলাম জানান, আগামী বছর দূতাবাসে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে প্রবাসীদের জন্য প্রভাতফেরীর ব্যবস্থা করা হবে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরা সম্ভব হয়নি।

রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ এ সময় প্রবাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস কীভাবে আরো ভাল করে পালন করা যায় তার পরামর্শ চান প্রবাসীদের কাছে। তিনি বলেন, খুব শিগগীর মিশনের নতুন ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হবে। সৌদি আরবের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে স্থায়ী শহীদ মিনার বানানো সম্ভব না হলেও দেয়ালে বিবরণসমৃদ্ধ করে ভাষাশহীদ এবং জাতীয় সমৃতিসৌধ মিনারের পেইন্টিং তৈরি করা হবে। এর ফলে, বিদেশিদের কাছে বাংলাভাষার শহীদদের আত্মত্যাগ বিষয়টি আরো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে।

এতে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম ভূইয়া, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সহসভাপতি কৃষিবীদ শামীম আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম, সৌদি আরব পূর্বাঞ্চলীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুল কাইয়ূম ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলামসহ আরো অনেকে।

অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে দূতাবাস আয়োজিত রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার বিজয়ী স্কুলশিক্ষার্থীদের বিশেষ সম্মাননা ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

15 − one =