শুধু ধর্মীয় সংখ্যালঘু নয়, মুক্তমনা মানুষও মৌলবাদের শিকার , আলোচনাচক্রে উদ্বেগ প্রকট

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

রবিবার কলকাতার অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টসে ইন্দো-বাংলাদেশ কালচারাল সেন্টার আয়োজিত আলোচনাচক্রে এমনই উদ্বেগ প্রকট হল দুই দেশের বিশিষ্টদের কথায়। বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন ও বিরোধী দলের প্রতিনিধির মধ্যে নানা বিষয়ে মতবিরোধ থাকলেও সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের অস্তিত্ব যে সঙ্কটে, সে বিষয়ে বস্তুত একমত হয়েছেন আওয়ামি লিগ ও  বিএনপির নেতারাও ।

‘ভারত-বাংলাদেশ সংলাপ, সংখ্যালঘু নিরাপত্তা ও গণতন্ত্র’ শীর্ষক দিনভর চলা আলোচনায় রাজনীতিক থেকে শিক্ষাবিদ, গবেষক, প্রাক্তন পুলিশকর্মকর্তারা  অংশ নেন। দেশভাগের পর, বাংলাদেশ গঠনের পরেও সেখানকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের নিরাপত্তা বিপন্ন। মৌলবাদী শক্তির অত্যাচারে দেশ ছাড়তে বাধ্য হচ্ছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুরা। একদিকে ক্রমবর্ধমান ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর বা তাদের সম্পত্তির উপর আক্রমণ, অন্যদিকে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার দুর্বলতা পরিস্থিতিকে আরও জটিল ও ভয়াবহ করে তুলেছে বলে বক্তারা মনে করেন।

শুধু ধর্মীয় সংখ্যালঘু নয়, মুক্তমনা মানুষও মৌলবাদের শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশে। মৌলবাদ বিরোধী অবস্থান নেওয়ার সম্প্রতি বেশ কয়েকজন ব্লগ লেখককে খুন হতে হয়েছে। বর্তমানে সেদেশে হিন্দু জনসংখ্যা কমতে কমতে প্রায় ছয় শতাংশে দাঁড়িয়েছে। একাধিক বক্তা মনে করেন, ভারতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর আক্রমণ হলে দেশের ভিতর থেকেই প্রতিবাদ ওঠে। তার ফলে এদেশের সংখ্যালঘুদের দেশ ছেড়ে যেত হয় না। এখানে গণতন্ত্র শক্তিশালী। কিন্তু বাংলাদেশে সংখ্যাগরিষ্ঠের অত্যাচারে সেখান থেকে এপারে চলে আসছে সংখ্যালঘুরা। ফলে, অচিরে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুর অস্তিত্ব বিলোপ পাবে। এদিন এমনই আশঙ্কার কথা উঠে এসেছে এই আলোচনা সভায়।

বাংলাদেশ আওয়ামি লিগ সংসদ সদস্য খালেদ মহাদুদ চৌধুরী, বিএনপি নেতা মজারুল ইসলাম দোলন, প্রাক্তন এমপি জয়নাল আবেদিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন সাদেতা হালিম, অধ্যাপক ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়,অবসরপ্রাপ্ত বিএসএফ কর্মকর্তা সমীর মিত্র, পুলিশ কর্মকর্তা গদাধর চট্টোপাধ্যায় চার পর্বের এই আলোচনা চক্রে অংশ নেন।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

7 − 2 =