শেখ হাসিনার দশটি বিশেষ উদ্যোগ প্রকৃত অর্থে দেশের বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধির পথনকশা-তথ্যমন্ত্রী

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দশটি বিশেষ উদ্যোগ প্রকৃত অর্থে দেশের বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধির পথনকশা।’

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর রামপুরায় বাংলাদেশ টেলিভিশনের শহীদ মনিরুল ইসলাম মিলনায়তনে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রধানমন্ত্রীর দশ বিশেষ উদ্যোগের প্রচারাভিযান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্য সচিব মরতুজা আহমদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শান্তি ও উন্নয়নের দূত হিসেবে বর্ণনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তার (প্রধানমন্ত্রী) নেতৃত্বে সামরিক-সাম্প্রদায়িকতা থেকে রাজনীতি যেমন গণতন্ত্রের পথে হাঁটছে, তেমনি অর্থনীতি ও সমাজেও বৈষম্যমুক্ত সমৃদ্ধির নতুন দিগন্ত সূচিত হচ্ছে।’

‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশ এবং দেশের পথনকশা হিসেবে সংবিধান উপহার দিয়েছেন; আর তার কন্যা শেখ হাসিনা দিয়েছেন দেশের জাদুকরী উন্নয়ন’, বলেন হাসানুল হক ইনু। দেশের উন্নয়নের পথে বাধা সৃষ্টিকারীদের পরাজয় অবধারিত উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আগুনযুদ্ধে পরাজিতরা গুপ্তহত্যার পথ বেছে নিলে আবারও পরাজিত হবে।’

গণমাধ্যমকে উন্নয়নের অংশীদার বলে বর্ণনা করে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তথ্য সচিব মরতুজা আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দশটি বিশেষ উদ্যোগকে সততা, ন্যায়নিষ্ঠা ও একাগ্রতার সাথে তৃণমূলে পৌঁছে দেবে তথ্য মন্ত্রণালয়।

‘একটি বাড়ি একটি খামার’, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’, ‘নারীর মতায়ন’, ‘সবার জন্য বিদ্যুৎ’, ‘কমিউনিটি কিনিক ও শিশু বিকাশ (মানসিক স্বাস্থ্য)’, ‘আশ্রয়ণ প্রকল্প’, ‘সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী’, ‘শিা সহায়তা কার্যক্রম’, ‘পরিবেশ সুরা’ ও ‘বিনিয়োগের বিকাশ’ শীর্ষক প্রধানমন্ত্রীর ১০টি বিশেষ উদ্যোগে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে কাজ করছে তথ্য মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ টেলিভিশনে নবগঠিত ১০টি পৃথক দল উদ্যোগভিত্তিক অনুষ্ঠানমালা নির্মাণ করছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘সবার জন্য বিদ্যুৎ’ উদ্যোগভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্রটি প্রদর্শিত হয়।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এস এম মাহবুবুল আলম, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক এ কে এম নেছার উদ্দিন ভূঁইয়া, গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কামরুন নাহার, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ লিয়াকত আলী খান, চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তপন কুমার ঘোষ। বিটিভির অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অনুষ্ঠান) সুরথ কুমার সরকার সভা শেষে ধন্যবাদ জানান।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

6 + eight =