‘সরকারকে বেকায়দায় ফেলতেই শিবির কোরান পুড়িয়েছে’

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার এ. কে. এম. হাফিজ আক্তার আজ বৃহস্পতিবার জানান, সরকারকে বেকায়দায় ফেলতেই বাংলাদেশ ছাত্র শিবিরের কর্মীরা বিভিন্ন মসজিদে ঢুকে পবিত্র কোরান শরিফের পাতা ছিঁড়ে রেখেছে।

তিনি জানান, এ অভিযোগে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া থেকে গ্রেপ্তারকৃত ৪ জন শিবিরকর্মীর মধ্যে ২ জন অপরাধ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছে। স্বীকারোক্তিতে তারা বলেছে, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে পরিকল্পিতভাবে সাতকানিয়া ও লোহাগাড়ার ১৯টি মসজিদে পবিত্র কোরান শরিফের পাতা ছিঁড়ে রাখা হয়েছিল।

কিন্তু পরিকল্পনাটি সম্পূর্ণ বাস্তবে পরিণত হওয়ার আগেই পুলিশ তাদেরকে গ্রেপ্তার করে।

দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলনে হাফিজ আক্তার এসব তথ্য উল্লেখ করে, এধরণের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হওয়ার পরিবর্তে বরং সচেতনভাবে পুলিশকে সহযোগিতা করতে সর্বসাধারণকে আহ্বান জানান।

গ্রেপ্তারকৃত দুই শিবিরকর্মীর জবানবন্দিতে নগর ও জেলা জামায়াত-শিবিরের যেসব কর্মীর নাম উঠে এসেছে, তদন্তের স্বার্থে সেগুলো গোপন রাখেন জেলা পুলিশ সুপার। তবে তাদেরকে ধরতে পুলিশের অভিযান শুরু হয়েছে বলেও তিনি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ কর্মকর্তাদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন: চট্টগ্রাম সদর, উত্তর, দক্ষিণ ও বিশেষ শাখার অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, মোস্তাফিজুর রহমান, হাবিবুর রহমান ও আবদুল আওয়াল, সাতকানিয়া অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার এ. কে. এম. এমরান ভুঁইয়া, এবং সাতকানিয়া থানার ওসি ফরিদউদ্দিন খোন্দকার।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

one × four =