হুমকির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জোড়া বিস্ফোরণ কেঁপে উঠল তাজমহল নগরী আগ্রা

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

জোড়া বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল ভারতের তাজমহল নগরী আগ্রা। তাজমহল উড়িয়ে দেয়ার হুমকির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই ঘটনা ঘটলো। শনিবার সকালে এই জোড়া বিস্ফোরণের প্রথমটি ঘটে আগ্রার ক্যান্টনমেন্ট রেল স্টেশনের কাছে রসুলপুরার একটি বাড়িতে আর দ্বিতীয়টি ঘটে ওই স্টেশনের গায়ে এক জঞ্জালের স্তূপে।

আইএস হুমকির জেরে একধাক্কায় ব্যাপকহারে বাড়িয়ে দেওয়া হয় তাজমহলের নিরাপত্তা। শুক্রবার লখনউতে অতিরিক্ত ডিরেক্টর জেনারেল (আইন-শৃঙ্খলা) দলজিৎ সিং চৌধুরি বলেন, ‘তাজমহল আইসিসের হিটলিস্টে রয়েছে, এমন একটা খবর ছড়িয়েছে। আমরা তার তদন্ত করে দেখছি। তবে তাজমহলের নিরাপত্তাব্যবস্থাও বৃদ্ধি করা হয়েছে বহুগুণ।’

সপ্তদশ শতকের এই স্মৃতিসৌধ ভারতীয় পর্যটনের অন্যতম ভিত্তি। দেশি-বিদেশি মিলিয়ে প্রতিদিন কয়েকশো পর্যটক আগ্রায় আসেন শ্বেতপাথরে তৈরি এই ‘ভালোবাসার নির্দশন’ চাক্ষুষ করতে। কিন্তু সেটিকেই আইএস আগামী টার্গেট হিসাবে বেছে নিয়েছে বলে জানিয়েছে একটি ওয়েবসাইট। আর তাতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে।

ওয়েবসাইটের লিঙ্কে গ্রাফিক্সে দেখা গিয়েছে, যুদ্ধ পোশাক এবং কালো কাপড়ে মুখ মুড়ে তাজমহলের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে এক আইএস জঙ্গি। হাতে স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র। সঙ্গে তিনটি ইনসেট। সেগুলিতে লেখা রয়েছে ‘নতুন লক্ষ্য’, ‘আগ্রায় শহিদ চাই’ এবং একটি বোমার ছবি। উল্লেখযোগ্যভাবে, নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে আইএস মনোভাবাপন্ন সইফুল্লার নিহত হওয়ার এক সপ্তাহ পর এই লিঙ্কটি প্রকাশ করা হয়েছে। এমনকী, ভোপাল ট্রেন দুর্ঘটনাতেও সে জড়িত ছিল বলে খবর। ফলে এই হুমকির বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করলেও তাজমহলের সুরক্ষায় কোনও ঝুঁকি নিতে নারাজ নিরাপত্তা এজেন্সিগুলি।

এমনিতে তাজমহলের ভিতরে নিরাপত্তার দায়িত্ব আধা-সামরিক বাহিনী সিআইএসএফের। আর বাইরে নিরাপত্তা দেয় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ এবং পিএসসি। হামলার খবর আসার পর আরও কড়া হয়েছে নিরাপত্তা। ৫০০ মিটারের মধ্যে সমস্ত গাড়ির গতিবিধির উপর কড়া নজরদারি চালাচ্ছে পিএসি।

গত মাসেই অবশ্য নিরাপত্তারক্ষীদের চোখে ধুলো দিয়ে তাজমহলের পাঁচিল বেয়ে উঠে পড়েছিলেন তামিলনাড়ুর এক যুবক। পরে তাকে পাকড়াও করে পুলিশের হাতে তুলে দেয় সিআইএসএফ। আর গত বছর এপ্রিল মাসে দিল্লির তিন যুবক মদ্যপ অবস্থায় ওঠার চেষ্টা করেছিল তাজমহলের প্রাচীর বেয়ে।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

20 + eighteen =