হ্যারির বিয়ে ভেঙেছে রক্ষণশীল ব্রিটিশ রাজপরিবারের চিরাচরিত প্রথা

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

এই প্রথম ব্রিটেনের কোনও রাজকুমার বিয়ে করলেন আধা–কৃষ্ণাঙ্গিনী এক বিবাহবিচ্ছিন্না অভিনেত্রীকে। এই প্রথম কোনও মার্কিনিকে ঘরে আনল ব্রিটিশ রাজ পরিবার।

রাজ রক্ত ছাড়াও রাজ পরিবারের বধূ হয়ে যে পরিবর্তনের ধারা নিয়ে এসেছিলেন কেট। সেই ধারায় আরও শক্তিশালী হল মেগানের অন্তর্ভুক্তিতে। একে আমেরিকান, তাতে আবার নিগ্রো রক্ত বইছে মেগানের শরীরে। এর থেকে বড় পরিবর্তন ব্রিটিশ রাজপরিবারের সম্ভব ছিল বলে মনে হয় না। মেগানের বন্ধু বলিউড তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া নবদম্পতিকে অভিনন্দন জানাতে গিয়ে লিখেছেন, ‘পরিবর্তন ও আশার বিয়ে’ !

ব্রিটেনের উইন্ডসোর ক্যাসেলের সেন্ট জর্জ চ্যাপেলে প্রিন্স হ্যারিকে ‘‌আই ডু’‌ বললেন  মেগান মার্কেল।

শনিবার সকালে ১০ লক্ষ ব্রিটিশ এবং ৬০০ বিদেশি অতিথি সাক্ষী ছিলেন এই ঐতিহাসিক ক্ষণের। ব্রিটেনের ছোট রাজকুমার হ্যারির বিয়ে ভেঙেছে রক্ষণশীল রাজপরিবারের চিরাচরিত প্রথা। হ্যারি গোঁ ধরে মনের মতো বেছেছেন মেনু , বিয়েতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গ বিশপ মাইকেল কারিকে, যিনি সমকামীদের বিয়েও দিয়েছেন। হাতে হাত ধরে শুনেছেন মার্টিন লুথার কিংকে উদ্ধৃত করে তাঁর বক্তৃতা।

হ্যারির বিয়েতে আসর মাতিয়েছে আফ্রিকান চার্চের গানের দল বা গসপেল কয়্যার। তাদের গলায় শোনা গেছে ভালবাসার জয়গান, বেন কিংয়ের বিখ্যাত ‘স্ট্যান্ড বাই মি’‌। বিয়ের পরই হ্যারি ও মেগান ফিরে গিয়েছেন রাজকীয় কর্তব্য পালনে।

শনিবার সকালে ১০ লক্ষ ব্রিটিশ এবং ৬০০ বিদেশি অতিথি সাক্ষী থাকল এই ঐতিহাসিক ক্ষণের। সাক্ষী থাকলেন রানি এলিজাবেথ দ্বিতীয়।

অসুস্থতার কারণে মেয়ের বিয়ের সময় উপস্থিত থাকতে পারেননি মেগানের বাবা। শ্বশুর প্রিন্স চার্লসের হাত ধরেই চার্চে প্রবেশ করেন মেগান। মাথায় হীরের মুকুট, সাদা রঙের গাউন পরেছিলেন হবু রাজবধূ। মেয়েকে কনের পোশাকে দেখে কেঁদে ফেলেন মেগানের মা।

ছেলের কাছে মেগানকে পৌঁছে দিয়ে নিজের আসনে চলে যান চার্লস। মেগানের হাত ধরে এগিয়ে যান হ্যারি। মেগানের ব্রাইড মেড হয়েছিল রাজকুমারী শার্লট। যথা সময়ে শুরু হয়ে বিয়ের রীতি। আংটি বদল করেন তাঁরা। তারপরেই একে অপরকে আই ডু বলে স্বামী–স্ত্রী হিসেবে বরণ করে নেন। সঙ্গে সঙ্গে ক্যাসেলে বেজে ওঠে ঘণ্টা।

বাকিংহাম প্যালেসে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয় ডাচেস অব সাসেক্স হলেন মেগান। অর্থাৎ ব্রিটিশ রাজপরিবারের বধূ হলেন মেগান। বিয়ের পরে ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে প্যালেসে ফেরেন ডাচ অব সাসেক্স এবং ডাচেস অব সাসেক্স।

হ্যারি এবং মেগানের বিয়েতে কেট–উইলিয়ামের মত জৌলুস না থাকলেও ছিল আন্তরিকতা। বিয়ের আসরে উপস্থিত ছিলেন হলিউড অভিনেতা জর্জ ক্লোনি। ছিলেন ওপরা ইউনফ্রি। বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। প্রাক্তন ফুটবলার ডেভিড বেকহ্যাম ও তাঁর স্ত্রী ভিক্সোরিয়া বেকহ্যাম, টেনিস তারকা সেরেনা ইউলিয়ামস।  ‌‌

রাজকীয় কর্তব্যের অঙ্গ হিসেবে অনুদান দিতে সাতটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে বেছেছেন ব্রিটেনের নতুন রাজদম্পতি। তার মধ্যে একমাত্র অ–ব্রিটিশ সংস্থা ভারতের ‘ময়না মহিলা সংগঠন’।  এটি মুম্বইয়ের সংগঠন। নানা সামাজিক সংস্কারের বিরুদ্ধে মেয়েদের কথা বলানোই যাদের কাজ। দরিদ্র শ্রেণির মহিলাদের কর্মসংস্থানও তাদের দায়িত্ব। নতুন রাজবধূ তথা হলিউড অভিনেত্রী মেগান মর্কেল বিশেষভাবে এই সংগঠনের সঙ্গে কাজের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

4 × 5 =