২০১৮ এর দুইটি জরিপেই খালেদা জিয়ার চেয়ে শেখ হাসিনা বেশি জনপ্রিয়

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই) জরিপের তথ্য তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য, যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষের কাছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেশি জনপ্রিয়।ফেসবুক স্ট্যাটাসে গবেষণা প্রতিবেদন সংক্রান্ত একটি সংবাদ লিংক সজীব ওয়াজেদ জয় শেয়ার করেন।স্ট্যাটাসে সজীব ওয়াজেদ জয় লেখেন, যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই) পরিচালিত একাধিক এফজিডি জরিপ অনুযায়ী বাংলাদেশের মানুষের কাছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার দল আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা খালেদা জিয়া ও বিএনপি থেকে পরিষ্কারভাবে বেশি।

 আইআরআই’র ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনের ফলাফলে দলীয় জনপ্রিয়তার পাশাপাশি অর্থনীতি, নিরাপত্তা, দুর্নীতি ও জাতীয় নির্বাচনসহ আরও বেশ কিছু বিষয়ে জনতার অভিমত তুলে ধরা হয়। এক্সিকিউটিভ সারসংক্ষেপে গবেষণার আটটি প্রধান তথ্য তুলে ধরা হয়।

গবেষণা তথ্য-১: গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে অধিকাংশই নিজেদের আর্থিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তবে তাদের বেশির ভাগ এই আর্থিক দুরাবস্থার জন্য সরকারকে দায়ী করেননি।

গবেষণা তথ্য-২: অংশগ্রহণকারীরা দুর্নীতিকে ‘গুরুতর’ সমস্যা বলে চিহ্নিত করেন। তারা অভিমত দেন, এই দুর্নীতিই মানুষের দৈনন্দিন জীবনকে বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করছে।

গবেষণা তথ্য-৩: অংশগ্রহণকারীরা নির্বাচনে জালিয়াতি এবং সহিংসতার ব্যাপারে বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর গুণগত মান নিয়ে সমালোচনা করেন। তারা আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ভোট দিতে চান। পাশাপাশি প্রায় সবাই নির্বাচনে রাজনৈতিক দলগুলোর পারস্পরিক সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

গবেষণা তথ্য-৪: গবেষণায় অংশ নেওয়া বেশিরভাগই স্বাধীনতা সংগ্রামে অবদান ও বর্তমান উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার দল আওয়ামী লীগের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করেন।

গবেষণা তথ্য-৫: বেশির ভাগ অংশগ্রহণকারী বিরোধী দলগুলোর মধ্যে বিএনপি (বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল) ও এর দল নেতা খালেদা জিয়া এবং জামায়াতের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করেন। বিরোধী দলগুলোর প্রতি নেতিবাচক মনোভাবের দৃষ্টিকোণ থেকে সংসদীয় বিরোধী জাতীয় পার্টির বিষয়ে তুলনামূলক ইতিবাচক মনোভাব বেশি পোষণ করেন অংশগ্রহণকারীরা।

গবেষণা তথ্য-৬: গবেষণায় অংশগ্রহণকারীরা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে বিভক্ত অভিমত দেন।

গবেষণা তথ্য-৭: বেশির ভাগ অংশগ্রহণকারী বলেন, বাংলাদেশের মানুষ তাদের রাজনৈতিক মতামত প্রকাশ্যে আলোচনা করতে ভয় পান। কারণ তারা রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিক্রিয়ার শিকার হওয়ার আশঙ্কায় ভোগেন।

গবেষণা তথ্য-৮: অংশগ্রহণকারীরা তাদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তার বিষয়ে মিশ্র মতামত দেন, বেশির ভাগের মতামতই ছিলো নেতিবাচক। তবে অধিকাংশ অংশগ্রহণকারী মনে করেন, সার্বিক নিরাপত্তা ইস্যুতে সরকার ভালো কাজ করছে।

উল্লেখ্য, এ বছরের জানুয়ারিতে দৈনিক ডেইলি স্টারের পক্ষে পরিচালিত এক জনমত জরিপে দেখা গিয়েছিলো যে, আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি উভয় দলের পক্ষেই জনসমর্থন বেড়েছে, কিন্তু অল্প ব্যবধানে এখনো এগিয়ে আছে আওয়ামী লীগ। একটি বেসরকারি সংস্থা সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক রিসার্চের মাধ্যমে এ নিয়ে ষষ্ঠবারের মতো এ ধরণের জনমত জরিপের ফল প্রকাশ করেছিল ডেইলি স্টার।

জরিপে দেখা গেছে , যদি বাংলাদেশে আজ নির্বাচন হয়, তাতে আওয়ামী লীগেরই জয়লাভের সম্ভাবনা। দেশের দুই প্রধান নেত্রীর ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা গত এক বছরে বেড়েছে বলে জরীপে দেখা গেছে । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা গত বছরের ৪০ শতাংশ থেকে বেড়ে ৪৮ শতাংশে উঠেছে। অন্যাদিকে বিরোধী দল বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা ৩০ শতাংশ থেকে ৩৯ শতাংশে উঠেছে।

 

 

 

 

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

6 − two =